পঙ্কজ দেবনাথের সংসদ সদস্য পদ থাকবে কিনা? আইন ও বাস্তবতার আলোকে পর্যালোচনা

সাংসদ পঙ্কজ দেবনাথ

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বরিশাল-৪ (হিজলা-মেহেন্দীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য পঙ্কজ দেবনাথকে আওয়ামী লীগের সব পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে আলোচনা হচ্ছে তার সংসদ সদস্য পদ থাকবে কিনা?  আসুন আলোচনা করে দেখা যাক।

প্রথমে জেনে নেই, সংসদ সদস্য পদ কেন বাতিল হয়?

বাংলাদেশের সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদ ও ৭০ অনুচ্ছেদে সংসদ সদস্য পদ কেন বাতিল হয় তার আলোচনা করা হয়েছে।
সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, কোনো ব্যক্তি কোনো আদালত কর্তৃক অপ্রকৃতিস্থ ও দেউলিয়া ঘোষিত হলে, বিদেশি রাষ্ট্রের আনুগত্য স্বীকার করলে, ফৌজদারি অপরাধে দণ্ডিত হয়ে কমপক্ষে দুই বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দণ্ডিত হলে, প্রজাতন্ত্রের কোনো লাভজনক পদে থাকলে এবং ৭০ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দল থেকে পদত্যাগ করলে বা সংসদে দলের বিপক্ষে ভোট দিলে তাঁর সদস্যপদ শূন্য হতে পারে।

সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদে বলা আছে, ‘সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ অনুসারে কোন সংসদ-সদস্যের আসন শূন্য হইবে কিনা, সে সম্পর্কে কোন বিতর্ক দেখা দিলে শুনানী ও নিষ্পত্তির জন্য প্রশ্নটি নির্বাচন কমিশনের নিকট প্রেরিত হইবে এবং অনুরূপ ক্ষেত্রে কমিশনের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হইবে।’

সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে,

৭০। কোন নির্বাচনে কোন রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরুপে মনোনীত হইয়া কোন ব্যক্তি সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হইলে তিনি যদি-
(ক) উক্ত দল হইতে পদত্যাগ করেন, অথবা
(খ) সংসদে উক্ত দলের বিপক্ষে ভোটদান করেন,
তাহা হইলে সংসদে তাঁহার আসন শূন্য হইবে, তবে তিনি সেই কারণে পরবর্তী কোন নির্বাচনে সংসদ-সদস্য হইবার অযোগ্য হইবেন না। কিন্তু দল যদি কাউকে বহিষ্কার করে সে ক্ষেত্রে কী হবে, সংবিধানে তার উল্লেখ নেই।
গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২ এ আদেশেরে আলােকে সব কারণে সংসদ সদস্য পদে প্রার্থীতা বাতিল হতে পারে সে সব কারণের উদ্ভব হলেও সংসদ সদস্য পদে অযোগ্য বিবেচিত হতে পারেন একজন সংসদ সদস্য।
সাংবিধানিক পদের শপথ ভঙ্গের পরিণতিঃ
সাংবিধানিক পদধারীদের মধ্যে সংবিধানের তৃতীয় তফসিলে যে সব পদধারীর উল্লেখ রয়েছে তারা সবাই শপথের অধীন। এ সব পদধারী কোনো পদে নির্বাচিত বা নিযুক্ত হওয়া পরবর্তী শপথ গ্রহণ ব্যতিরেকে পদে আসীন হন না। সাংবিধানিক পদধারীদের মধ্যে যারা শপথের অধীন তারা হলেন- রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার, সংসদ সদস্য, প্রধান বিচারপতি বা বিচারক, প্রধান নির্বাচন কমিশনার বা নির্বাচন কমিশনার, মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক এবং সরকারি কর্ম কমিশনের চেয়ারম্যান ও সদস্য। অ্যাটর্নি জেনারেল সাংবিধানিক পদধারী হলেও তিনি শপথের অধীন নন। আর তাই নিয়োগ পরবর্তী অ্যাটর্নি জেনারেলের শপথ পাঠের আবশ্যকতা দেখা দেয় না।

সংসদ সদস্যরা নির্বাচিত হওয়া পরবর্তী যে শপথ পাঠ করেন তাতে তাদের পাঠ করতে হয়- তারা বাংলাদেশের প্রতি অকৃত্রিম বিশ্বাস ও আনুগত্য পোষণ করবেন। তারা যে কার্যভার গ্রহণ করতে যাচ্ছেন, তা আইন অনুযায়ী বিশ্বস্ততার সাথে পালন করবেন এবং সংসদ সদস্যরূপে তাদের কর্তব্য পালনকে ব্যক্তিগত স্বার্থে প্রভাবিত হতে দেবেন না। সাংবিধানিক পদধারীদের মধ্যে যারা শপথের অধীন কি কি কারণে তাদের শপথ ভঙ্গ হয় এ বিষয়ে সংবিধানে কোনো কিছু বলা না থাকলেও একজন শপথধারী ব্যক্তি কর্তৃক শপথের ব্যত্যয়ে কোনো কিছু করাকে ভাবার্থগতভাবে (ইমপ্লিকেশন) শপথ ভঙ্গ বোঝায়। একজন সাংবিধানিক পদধারীর শপথ ভঙ্গ সংবিধান লঙ্ঘনের সমার্থক।

সংসদ একজন সাংবিধানিক পদধারী সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন কি না অথবা তার শপথের পরিপন্থী কোনো কাজ করেছেন কি না অথবা শারীরিক বা মানসিক অসামর্থ্যরে কারণে দায়িত্ব পালনে অপরাগ কি না এর যেকোনো বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিধিবিধান অনুসরণপূর্বক সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য ক্ষমতাপ্রাপ্ত; তবে এরূপ একজন সাংবিধানিক পদধারীকে পদ থেকে অপসারণ করতে হলে সিদ্ধান্তটি সংসদের দুই-তৃতীয়াংশ সদস্যের অনুমোদিত হওয়ার আবশ্যকতা রয়েছে। তা ছাড়া দেশের সর্বোচ্চ আদালত কোনো মামলা সংশ্লেষে যদি সিদ্ধান্ত দেয়- উপরোক্ত যেকোনো পদধারী সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন অথবা তার শপথের পরিপন্থী কোনো কাজ করেছেন অথবা শরীরিক বা মানসিক অসামর্থ্যরে কারণে দায়িত্ব পালনে অপারগ, সে ক্ষেত্রে সংসদের পক্ষে তা অবজ্ঞা বা উপেক্ষা করার সুযোগ ক্ষীণ।

সংবিধান বা দেশের প্রচলিত আইনের কোথাও অসদাচরণ বা গুরুতর অসদাচরণের কোনো ব্যাখ্যা দেয়া হয়নি; যদিও সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ১৯৮৫-তে অসদাচরণ বলতে- অন্যান্য বিষয়ের পাশাপাশি এমন আচরণকে বোঝানো হয়েছে যা একজন কর্মকর্তা অথবা ভদ্রলোকের পক্ষে অনুচিত।
একজন সাংবিধানিক পদধারীর স্বপঠিত শপথের পরিপন্থী অথবা শপথের সাথে সাংঘর্ষিক যেকোনো কাজ আইনের দৃষ্টিতে অসদাচরণ বা গুরুতর অসদাচরণ। সংবিধান একজন সাংবিধানিক পদধারীর গুরুতর অসদাচরণকে নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধ হিসেবে গণ্য করেছে। এরূপ গুরুতর অসদাচরণ সংবিধান লঙ্ঘনের সমার্থক। ( শপথ ভঙ্গের পরিণতি বিষয়টি  ইকতেদার আহমেদ, সাবেক জজ, সংবিধান, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক বিশ্লেষক এর একটি কলাম থেকে সংক্ষেপিত) ।
তাহলে, আমরা দেখতে পাচ্ছি- একজন সাংবিধানিক পদধারীর স্বপঠিত শপথের পরিপন্থী অথবা শপথের সাথে সাংঘর্ষিক যেকোনো কাজ আইনের দৃষ্টিতে অসদাচরণ বা গুরুতর অসদাচরণ। সংবিধান একজন সাংবিধানিক পদধারীর গুরুতর অসদাচরণকে নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধ হিসেবে গণ্য করেছে বিধায় সংসদ চাইলে উক্ত সাংবিধানিক পদধারীকে পদ থেকে অপসারণ করতে হলে সিদ্ধান্তটি সংসদের দুই-তৃতীয়াংশ সদস্যের অনুমোদিত হওয়ার ব্যবস্থা গ্রহন করতে পারে।  অপরদিকে, দেশের সর্বোচ্চ আদালত স্ব-প্রণোদিতভােবে কিংবা কারো আবেদনে (সাধারণত রীট করলে)  যদি সিদ্ধান্ত দেয়- উপরোক্ত যেকোনো পদধারী সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন অথবা তার শপথের পরিপন্থী কোনো কাজ করেছেন অথবা শরীরিক বা মানসিক অসামর্থ্যরে কারণে দায়িত্ব পালনে অপারগ তাহলেও তিনি পদ হারাতে পারেন।

তাহলে পঙ্কজ দেবনাথ কি এমপি পদ হারাচ্ছেন ?

এর আগে দশম সংসদে ২০১৪-২০১৫ সালে আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে নিয়ে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। বিতর্কিত মন্তব্য করে ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত হয়েছিলেন সাবেক সাংসদ আবদুল লতিফ সিদ্দিকী। তাঁর প্রাথমিক সদস্যপদও বাতিল করেছিল আওয়ামী লীগ। তখন প্রশ্ন উঠেছিল, তাঁর সংসদ সদস্য পদ থাকবে কি না, কারণ তিনি আওয়ামী লীগ থেকে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন।
দল থেকে বহিষ্কারের পর লতিফ সিদ্দিকীর সংসদ সদস্য পদ বাতিলের সুপারিশ করে জাতীয় সংসদের স্পিকারকে চিঠি দিয়েছিল আওয়ামী লীগ। তখন লতিফ সিদ্দিকীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে (সিইসি) চিঠি দেন স্পিকার। পরে নির্বাচন কমিশন আওয়ামী লীগ ও লতিফ সিদ্দিকীর কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছিল।

ইসিকে দেওয়া ব্যাখ্যায় লতিফ সিদ্দিকীর সংসদ সদস্য পদ বাতিলের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেছিল আওয়ামী লীগ। দলটির সেই চিঠিতে বলা হয়েছিল, ‘লতিফ সিদ্দিকী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন আইনে বলা হয়েছে, প্রার্থী মানে দল কর্তৃক মনোনীত বা স্বতন্ত্রভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ব্যক্তি। অর্থাৎ রাজনৈতিক দলের মনোনীত প্রার্থীর স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার সুযোগ নির্বাচনের আগে ও পরে নেই। দলের সকল পদ থেকে বহিষ্কার হওয়ায় বর্তমানে তিনি আওয়ামী লীগের কেউ নন। যে কারণে তিনি সংসদ সদস্য পদে থাকার আইনগত অধিকার হারিয়েছেন।’

অবশ্য শেষ পর্যন্ত ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে গিয়ে নিজেই সাংসদ পদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন লতিফ সিদ্দিকী। ২০১৫ সালের ৩ সেপ্টেম্বর লতিফ সিদ্দিকীর আসনটি শূন্য হওয়ার বিষয়টি সংসদকে অবহিত করেন স্পিকার।সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, মন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ বা জেলা কমিটির দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সঙ্গে সংসদ সদস্য পদ থাকা না থাকার সম্পর্ক নেই। তবে দল থেকে যদি তাঁকে খারিজ করে দেওয়া হয়, তখন সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের প্রসঙ্গ আসবে। তিনি যে দলের পরিচয়ে নির্বাচন করে নির্বাচিত হয়েছেন, সে দল যদি তাঁকে দল থেকে বের করে দেয়, তাহলে ৭০ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী জাতীয় সংসদে তাঁর সদস্য পদ থাকার কথা নয়। এ রকম পরিস্থিতি হলে সেটা নির্বাচন কমিশনে যাবে। নির্বাচন কমিশন ৭০ অনুচ্ছেদের আওতায় সিদ্ধান্ত নেবে।

অবশ্য দল থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পরও সংসদ সদস্য পদে বহাল থাকার নজির আছে। বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে অষ্টম জাতীয় সংসদে বিএনপি থেকে নির্বাচিত সাংসদ আবু হেনাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছিল বিএনপি। তখন আবু হেনার সংসদ সদস্য পদ বহাল রাখার সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন তৎকালীন স্পিকার।
অপরদিকে সর্বশেষ ডা. মুরাদও দল থেকে বহিষ্কার হলেও তিনি এখনো স্বপদে বহাল আছেন।

তার মানে এখানে দুইটি বিষয় জড়িত। প্রথমত , তাকে শুধু মন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ বা জেলা কমিটির দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সঙ্গে সংসদ সদস্য পদ থাকা না থাকার সম্পর্ক নেই। দল থেকে যদি তাঁকে প্রাথমিক সদস্য পদ থেকেও খারিজ করে দেওয়া হয়, তখন সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের প্রসঙ্গ আসবে।দ্বিতীয়ত, কোন সংসদ-সদস্য তাঁহার নির্বাচনের পর এই সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদের (২) দফায় বর্ণিত অযোগ্যতার অধীন হইয়াছেন কিনা কিংবা এই সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ অনুসারে কোন সংসদ-সদস্যের আসন শূন্য হইবে কিনা, সে সম্পর্কে কোন বিতর্ক দেখা দিলে শুনানী ও নিষ্পত্তির জন্য প্রশ্নটি স্পীকার কর্তৃক নির্বাচন কমিশনের নিকট প্রেরিত হইবে এবং অনুরূপ ক্ষেত্রে কমিশনের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হইবে ।

সুতরাং, পঙ্কজ দেবনাথ এমপি পদে থাকছেন কিনা সেটা তার দল থেকে যদি তাঁকে প্রাথমিক সদস্য পদ থেকেও খারিজ করছে কিনা সেটার উপর নির্ভর করছে এবং নির্বাচন কমিশনের নিকট এমন প্রশ্ন প্রেরিত হলে অনুরূপ ক্ষেত্রে কমিশনের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হইবে । অন্যদিকে, দেশের সর্বোচ্চ আদালত স্ব-প্রণোদিতভােবে কিংবা কারো আবেদনে (সাধারণত রীট করলে)  যদি সিদ্ধান্ত দেয়- উপরোক্ত সাংসদ সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন অথবা তার শপথের পরিপন্থী কোনো কাজ করেছেন অথবা শরীরিক বা মানসিক অসামর্থ্যরে কারণে দায়িত্ব পালনে অপারগ তাহলেও তিনি পদ হারাতে পারেন।

-আইনজীবী মোহাম্মদ তরিক উল্যাহ (এম টি উল্যাহ)
[email protected]

scroll to top