মাসুদকে ভালো হয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিলেন হাইকোর্ট!


ভাড়ার বাইকচালক হিসেবে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর হয়ে আলোচনায় আসা সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাসুদ রানাকে সতর্ক করেছেন হাইকোর্ট।সোমবার (১৯ জুলাই) বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি কে এম জাহিদ সারওয়ার কাজলের হাইকোর্ট বেঞ্চ তাকে সতর্ক করেন। এ সময় আদালত বলেছেন, ‘ভালো হয়ে যান মিস্টার মাসুদ রানা।’

আইনজীবী মাসুদ রানার দুটি মামলায় জামিনের আবেদন ছিল এই বেঞ্চে। সকালে মামলা দুটি শুনানি করতে গেলে আদালতের জ্যেষ্ঠ বিচারক তাকে দেখেন বলেন, ‘মিস্টার মাসুদ আপনি বিখ্যাত হয়ে গেছেন উবার চালাইয়া। এগুলো করবেন না। আপনি ভালো হয়ে যান।’

পরে আদালত আইনজীবী মাসুদ রানার দুই মামলায় জামিন প্রশ্নে রুল জারি করেন।

সম্প্রতি কোট গায়ে বাইক নিয়ে রাইড শেয়ারিংয়ের ছবি প্রকাশ করে ভাইরাল হন আইনজীবী মাসুদ রানা। এ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে চলছে আলোচনা। এমনকি আইনজীবীদের মধ্যেও রয়েছে মিশ্রু প্রতিক্রিয়া। শেষ পর্যন্ত আদালতে বিষয়টি আলোচনায় এসেছে।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ জুলাই (শুক্রবার) বাইক রাইডিংয়ের একটি ছবি শেয়ার করে এডভোকেট মাসুদ রানা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে আবেগঘন একটি পোস্ট দিয়েছিলেন। ‘মাননীয় প্রধান বিচারপতি, আপনার কোর্ট অফিসার এখন বাইক রাইডার’ শিরোনামে দেওয়া ওই পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘আইনপেশা লকডাউনে সম্পূর্ণ বন্ধ। লকডাউন ব্যতীত সময়ে সীমিত পরিসরে ভার্চুয়াল কোর্ট ছিল। কিন্তু এখন লকডাউন স্থগিত হলেও কোর্ট বন্ধ। সব পেশার মানুষ কাজ করতে পারছেন, শুধু আইনজীবীরাই কর্মহীন।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘দীর্ঘ এক বছর চারমাস উপার্জনহীন থাকলেও বাড়িভাড়া, চেম্বার ভাড়া, বার কাউন্সিল, বার অ্যাসোসিয়েশনসহ জীবন-যাপন ব্যয় থেমে নেই। কোর্ট অফিসারদের (আইনজীবী) চরম দুর্দিন চলছে। আইনজীবীদের চিফ অথোরিটি মাননীয় প্রধান বিচারপতি, কিন্তু তাকে কিছু বলা যাবে না। আদালত অবমাননার অভিযোগে সনদ চলে যায়। অনেকেই আপদকালীন ভিন্ন পেশা গ্রহণ করলেও সংখ্যাগরিষ্ঠরা কোর্ট খোলার আশায় আছেন। কিন্তু আমি অতি সাধারণ, তাই এত কিছু না ভেবে কর্ম এবং উপার্জনের লক্ষ্যে আপদকালীন এ বাইক রাইডিং পেশা শুরু করলাম। সবার নিকট দোয়া চাই। সবাই ভালো থাকবেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন।’

scroll to top